বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
বৃহত্তর কালিগঞ্জ প্রবাসী কল্যাণ সংস্থা’র আত্মপ্রকাশ  » «   আদালতে ১৬৪ধারায় সেই ঘাতকের জবানবন্দী  » «   পরীক্ষার হলে শিক্ষিকা ঘুমে জানালেন উপজেলা চেয়ারম্যান  » «   সাংবাদিক আহসান হাবীবের মা অসুস্থ, দোয়া কামনা  » «   লন্ডনে যুব সংহতির সভায় হুইপ সেলিম উদ্দিন এমপি  » «   ওমর মিয়াদ হত্যার অভিযোগে জকিগঞ্জের তোফায়েল আটক  » «   সাইফুল আলম হত্যা; এনামকে একমাত্র আসামী দিয়ে থানায় হত্যা মামলা  » «   ইছামতি কলেজের ছাত্র সাইফুল আলমের হত্যাকারির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি  » «   একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী কিশোর; ঘাতক হত্যাকারি রেহাই পায়নি  » «   পাশের ঘরের চাচাতো ভাই সাইফুল আলমকে হত্যা করে  » «  

হাওরে নৌকাডুবি বাবা, ছেলে-মেয়ে ও ভাতিজার মৃত্যু

boat_120923
হবিগঞ্জের লাখাই এলাকায় নৌকাডুবিতে একই পরিবারের চার জনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন বাবা হক মিয়া, তার নয় বছরের ছেলে মুজাহিদ, সাত বছর বয়সী মেয়ে জান্নাত এবং আট বছর বয়সী ভাজিতা সৌরভ। নিহত সবার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম উপজেলার বরাইকান্দি গ্রামে।

সৌরভের বাবা লোকমিয়া জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে হাওরে এই নৌকাডুবির খবর পেয়ে ছুটে যান তারা। তিনি জানান, একটি শিশুর সুন্নত এ খাতনার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে তার ভাই হক মিয়া লাখাইয়ে শ্বশুর বাড়ি যাচ্ছিলেন। এ সময় তার ছেলে সৌরভও আবদার করে মেহমান হিসেবে যাওয়ার। পরে স্ত্রী, দুই সন্তান ও ভাজিতা ও স্ত্রীর ভাইকে নিয়ে সকাল ১০টার দিকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে রওয়ানা হন তিনি।  বাড়ি থেকে আনুমানিক ছয় কিলোমিটার দূরে হাওরের ঢেউয়ের আঘাতে নৌকাটি ডুবে যায়। পরে স্থানীয়রা হক মিয়ার স্ত্রী, এক সন্তান ও স্ত্রীর ভাইকে জীবিত উদ্ধার করলেও বাকিরা প্রাণে বাঁচতে পারেননি।

লোকমিয়ার তিনটি সন্তানের মধ্যে সৌরভ অষ্টগ্রামে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণিতে পড়তো। পেশায় গাতক (পালাগান করেন) লোকমিয়া একে অদৃষ্টের লিখন হিসেবে ধরে নিয়ে কষ্ট ভোলার চেষ্টা করছেন। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘ভাই নাইয়র যাইব শুইন্যা পোলাডাও আমার আবদার করছিল সাথে যাইবো। গেলো যে, একবারেই চইল্যা গেলো পোলাডা আমার’।  বলেন, ‘সাত মাইল দূরের পথের ছয় মাইল ভালয় ভালয় গেছিল। এরপর আফাল (উঁচু ঢেউ) আইয়া বাড়ি দিল নৌকারে’।

চার জনের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছেন পরিবারের অন্য সদস্যরা। শোকের ছায়া গোটা বরাইকান্দি গ্রামেই। দলে দলে মানুষ ছুটে এসে শান্তনা দেয়ার চেষ্টা করছেন।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোজাম্মেল হক জানান, মরদেহ চারটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আহতদের উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

লোকমিয়া বলেন, ‘সবাইরে বিদায় জানাতে অইবো। পুলিশের কাছে কাগজপত্র কইরা লাশ নিয়া আসলাম, গোছল দিলাম। রাতেই কবর দিতে হবে’।

printer
সর্বশেষ সংবাদ

<div “=””>

বিভাগীয় খবর পাতার আরো খবর

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.