শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শাহগলী আদর্শ শিশু বিদ্যানিকেতনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও জাতীয় শহীদ দিবস পালন  » «   শাহবাগে শাহ্ মো. ফয়ছল চৌধুরী ক্রিকেট টুর্নামেন্ট এর উদ্বোধন  » «   মহান ভাষা দিবসে জকিগঞ্জের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   জকিগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে বৈধ প্রার্থী ১২, বাতিল ৩  » «   সড়ক দূর্ঘটনায় জকিগঞ্জের দুই শিক্ষক আহত  » «   হাসিতলা গ্রামের বিশিষ্ট মুরব্বী রফিক আহমদের দাফন  » «   বাছিত চৌধুরীকে জিএমসি স্কুল এন্ড কলেজে ফুলেল শুভেচ্ছা  » «   হিফজের শিক্ষক মোস্তাকীম আলীর ৫০বছর পূর্তিতে ছাত্রদের সম্মাননা  » «   শরীফগঞ্জে ক্রিকেট টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ, রানার্সআপ শেখ রাসেল ক্রীড়া সংস্থা  » «   নিদনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট কাউন্সিল আগামী বুধবার  » «  

‘সাহস নিয়ে আফগান স্পিনারদের মোকাবিলা করতে হবে’

রশিদ খান ও মোহাম্মদ নবী দেরাদুনে কী করেছিল, সেটা ভালো করেই জানে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে টি-টোয়েন্টি সিরিজে আফগানিস্তানের স্পিনারদের কাছে ধরাশায়ী হয়েছিল বাংলাদেশ। এশিয়া কাপ গ্রুপের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচেও তাদের বড় হুমকি স্পিনাররা। তবে এই বাধা পেরোনোর মন্ত্র শিখিয়ে দিলেন ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা।

রশিদ ৮টি, আর নবী ৪টি উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ করতে অগ্রগণ্য ভূমিকা রেখেছেন। এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেও দুটি করে উইকেট নিয়ে দুর্দান্ত শুরু হয়েছে ‍দুই স্পিনারের। আরেক স্পিনার মুজিব উর রহমানও নেন দুটি উইকেট। এই তিন স্পিনার যে কোনও সময় বাংলাদেশের জন্য হুমকি হতে পারে স্বীকার করলেন মাশরাফি। দলের ব্যাটসম্যানদের প্রতি তার বার্তা- সাহস নিয়ে রশিদ-নবী-মুজিবদের মোকাবিলা করতে হবে। একই সঙ্গে বাজে বলের জন্য অপেক্ষা করে চড়াও হওয়ার কথা বলেছেন তিনি।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে নামার আগে বুধবার শেষ প্রস্তুতি নেওয়ার ফাঁকে মাশরাফি জানালেন তারা প্রস্তুত। দুবাই স্পোর্টস একাডেমির মাঠে তিনি সাংবাদিকদের জানালেন, আফগানিস্তানের ত্রিশূলকে আটকানোর ছক এঁকেছেন তারা, ‘আসলে দুইজন বোলার (রশিদ ও মুজিব) তাদের দলকে বদলে দিয়েছে। এটা ঠিক যে প্রত্যেক দলই ওদের বিপক্ষে লড়াই করছে। এটা নতুন কিছু নয়। তাদেরকে ভালোভাবে খেলাটা ব্যাটসম্যানদের আত্মবিশ্বাসের ওপর নির্ভর করছে। ধরেই নিতে হবে তারা ভালো বল করবে। এটাকে কিভাবে সামলানো যায়, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। সাহসিকতার সঙ্গে খেলতে হবে। তাদের সামলাতে পারলে ম্যাচ জেতাও সহজ হবে।’

টি-টোয়েন্টিতে আফগান স্পিনাদের কাছে ব্যর্থ হলেও মাশরাফির আশা ওয়ানডেতে ভিন্ন কিছু হবে। এনিয়ে তার যুক্তি, ‘টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে আক্রমণে যেতেই হবে। দুইজনের ৮ ওভার দেখেশুনে খেলে বাকি ১২ ওভারে তো ম্যাচ জেতা যায় না। আক্রমণের বিকল্প কিছু থাকে না। ওয়ানডে কিন্তু আলাদা। এখানে একটু মাথা খাটিয়ে এক-দুই নিয়ে খেললেই হয়। তাদের ওভারগুলো থেকে ৩৫-৪০ রান হলেই ম্যাচ নিয়ন্ত্রণে থাকবে। আমাদের ব্যাটসম্যানদের সেই চেষ্টা করতে হবে।’

আরেকটি সুযোগ খুঁজতে হবে ব্যাটসম্যানদের। মাশরাফির মতে, ‘তারা যে বাজে বল করে না, তা নয়। বাজে বলের ফায়দা পুরোটা নিতে হবে। তার পরও বলতে হবে, তাদের বিপক্ষে ব্যাট করা এত সহজ নয়। বাড়তি চাপ না নিয়ে স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে হবে। তারা কী করবে না ভেবে নিজের মতো প্রস্তুতি নিয়ে যেতে হবে।’

দুবাইয়ে অনুশীলন শেষে বৃহস্পতিবার আবুধাবিতে আফগানিস্তানের সঙ্গে লড়বে বাংলাদেশ। প্রথমবার এই মাঠে নামবে তারা। উইকেট একেবারে অচেনা হলেও কোনও ধরনের অনিশ্চয়তায় ভুগতে চান না মাশরাফি, ‘ওখানে অনুশীলনের সুবিধাও নেই শুনেছি, এখানেই করতে হচ্ছে। এখানে থেকে আবুধাবি দেড়-দুই ঘণ্টা লাগে। সেটা সমস্যা নয়, সব দলের জন্যই সমান। পাকিস্তান-আফগানিস্তান এখানে অনেক খেলেছে, তার মানে এটা নয় যে আমরা এখানে লড়াই করতে পারব না। এখন কাল (বৃহস্পতিবার) আমাদের সম্ভাব্য সেরা চেষ্টা করতে হবে। নিজেদের শরীরের দিকে খেয়াল রেখে লড়াই করতে হবে। আশা করি নতুন জায়গায় নিজেদের মেলে ধরতে পারব।’

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.