শনিবার, ২৬ মে, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
জকিগঞ্জে বৃহত্তর খলাছড়া প্রবাসী কল্যান সংস্থার আহবায়ক কমিটির আত্মপ্রকাশ  » «   জকিগঞ্জ বিদ্যুতের অভিযোগ কেন্দ্রের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ  » «   পাঠানচক প্রবাসী জনকল্যাণ সংস্থার কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও দরিদ্রদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠান শনিবার  » «   প্রতিবন্ধী ও দরিদ্রদের মধ্যে জকিগঞ্জ এইচটিএ সেবা ফাউন্ডেশনের চাল বিতরণ  » «   সিলেট তিব্বিয়া কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর, জকিগঞ্জের সন্তান আব্দুর রবের ইন্তেকাল  » «   দূর্ঘটনায় নিহত জকিগঞ্জের সালমান আহমদ সুমনের দাফন  » «   দরিদ্র, প্রতিবন্ধীদের নিয়ে জকিগঞ্জ এইচটিএ সেবা ফাউন্ডশনের ইফতার  » «   বারহাল ছাত্র পরিষদের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন  » «   জকিগঞ্জে ফার্মাসিউটিকেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ এসো: কমিটি গঠন  » «   বাসের ধাক্কায় জকিগঞ্জের সুমনের মর্মান্তিক মৃত্যু  » «  

সাম্প্রতিক ভাবনা

মো. আবদুল আউয়াল হেলাল, লন্ডন থেকে ;; কিছু কথিত বুদ্ধিজীবির মুখে প্রায়ই শুনতাম, আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে প্রোপাগাণ্ডা ছড়ানো হয় যে, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এলে দেশ ভারত হয়ে যাবে, মসজিদে আযান বাদ দিয়ে উলু ধ্বনি হবে। কই এত বছর আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আছে, এসবের কিছুই তো হয়নি।
আপনারা ঠিকই আছেন, প্রত্যক্ষভাবে এসবের কিছুই হয়নি; হলপ করে বলা যায় প্রত্যক্ষভাবে হবেও না।
বর্তমান বৈশ্বিক রাজনীতির বাস্তবতায় ভারত কোন দিনও সিকিম’র মত করে বাংলাদেশের ভৌগলিক দখল নেবে না।তাই আপনাদের গলাবাজির সুযোগ থেকেই যাবে।তবে বর্তমান সময়ে দেশের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় গার্মেন্টস শিল্পের ষাট ভাগেরও বেশি ভারতের বিভিন্ন কোম্পানী এবং ব্যক্তির মালিকানায় রয়েছে।ভারতের সাথে বর্তমান বাণিজ্য ঘাটতির পরিমান কত? আন্তর্জাতিক নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে ভারতের চলমান পানি আগ্রাসন, নামমাত্র শুল্ক ক্ষেত্র বিশেষে শুল্ক ছাড়াই ভারতকে ট্রানজিট সুবিধা প্রদান, এমনকি ভারতের গাড়ি চলাচল সহজ করে দিতে বহমান নদীতে বাঁধ নির্মাণ; দেশের লাখো শিক্ষিত যুবক যেখানে চাকরির অভাবে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে, সেখানে হাজার হাজার ভারতীয় যুবককে বিভিন্ন সেক্টরে চাকরীর সুযোগ দেয়া এগুলো কিসের লক্ষণ ? দাস শ্রেণির মিডিয়া এসব প্রচার করেনা।করলেই খুলাসা হয়ে যেতো ভৌগলিকভাবে দেশ ভারত না হলেও অর্থনৈতিকভাবে গোলামীর দ্বারপ্রান্তে উপনীত।
সাংস্কৃতিক আগ্রাসন যে কতখানি চরমে পৌঁছেছে একান্ত দাস মনোবৃত্তির ব্যক্তি ছাড়া তা স্বীকার করবেন।
১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামীলীগ প্রথমেই কুদরত ই খুদা শিক্ষা কমিশনের সেই বিতর্কিত সুপারিশ কার্যকরের উদ্যোগ নেয়। সচেতন দেশবাসি সোচ্চার হয়ে ওঠায় সে যাত্রা তারা পিছিয়ে যায়। তবে বর্তমান দু’টার্মে কৌশলের আশ্রয় নেয়। কুদরত ই খুদা কমিশন’র নাম মুখে না নিয়েই ক্রমান্বয়ে তা বাস্তবায়ণে উদ্যোগী হয়। একজন একনিষ্ঠ এবং সৎ কমিউনিস্টকে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দিয়ে সন্তর্পণে, সুকৌশলে মোটামুটি দেশের গোটা শিক্ষা ব্যবস্থাকে একটা পর্যায়ে নিয়ে এসেছে।আগামী টার্মে ক্ষমতায় এসে ফাইন্যাল খেলা খেলবে এটা পরিস্কার।
শিক্ষা ব্যবস্থার এই বারোটা বাজায় যারা সবচেয়ে বেশি সোচ্চার হবার কথা তাঁরা কিন্তু নীরব। কারণ ? খুবই সহজ, যে হারে বেতন ভাতা এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বর্ধিত করা হয়েছে তাতে তাঁদেরও একটা দায় আছে না! যত যাই হোক তাঁরাতো শিক্ষিত সমাজ, নিমকহারামী তো করতে পারেন না।
এই যে এবার মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের মাধ্যমে মন্ত্রনালয় পয়লা বৈশাখে মাদরাসাগুলোতে মঙ্গল শুভাযাত্রার নির্দেশ দিলো তা কিসের লক্ষণ ? আগামীতে মাদরাসায় স্বরস্বতি পুজার সরকারী নির্দেশ আসলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। কেননা বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধান মন্ত্রী বহু আগেই তো জানিয়েছেন ধর্ম যার যার উৎসব সবার।
বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ এবং তৃতিয় বাংলা খ্যাত এই লণ্ডনে যারা আমাকে কাছে থেকে জানেন তাঁরা স্বীকার করবেন আমি ধর্মান্ধ কিংবা ধর্ম বিদ্বেষী নই। তবে ধর্ম নিষ্ঠ। তাই আমি অন্য ধর্মাবলম্বীদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখি এবং দৃঢ়তার সাথে বলি- ধর্ম যার যার উৎসবও তার তার।
অতএব উৎসবের অজুহাতে মঙ্গল শুভাযাত্রার নামেই হোক কিংবা অন্য কোন আদলে কোন হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি সরকারী নির্দেশনায় মুসলমানের উপর চাপিয়ে দেয়া ঘৃনাভরে প্রত্যাখ্যান করি। ঠিক তেমনি যদি কখনো উৎসবের নামে মুসলমানের স্বকীয় কোন সংস্কৃতি সরকারী নির্দেশে হিন্দু কিংবা অন্য ধর্মাবলম্বীদের উপর চাপানোর চেষ্টা করা হয় বুক চেতিয়ে তারও বিরোধিতা করবো।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.