শনিবার, ১৮ আগষ্ট, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
মৌলভী ছাইর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন   » «   শাহগলী আদর্শ শিশু বিদ্যানিকেতনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালন  » «   বারহালে মাদক,সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আলোচনা সভা সম্পন্ন  » «   আটগ্রামে স্কুল ছাত্র সাজুর ইন্তেকাল  » «   আটগ্রামে সরকারি গোপাট উন্মুক্ত করতে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ  » «   কালিগঞ্জ বাজারে একটি দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি  » «   রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা কুন্টি মিয়ার দাফন সম্পন্ন  » «   জকিগঞ্জে ডিজিটাল কনটেন্ট বিষয়ে দিন ব্যাপি কর্মশালা  » «   নৌকার সমর্থনে মাসুক উদ্দিন আহমদের গণ সংযোগ  » «   ৯ইউপি ও ১পৌরসভায় ত্রাণ বিতরণ করবে জকিগঞ্জ সোসাইটি অব ইউএসএ ইন্ক  » «  

সাবেক ‘এশিয়ার সেরা ফুটবলার’ জকিগঞ্জের আলফাজের সাথে ‘জেডএসও’র সৌজন্য সাক্ষাৎ

কয়েছ আহমদঃ সাবেক এশিয়ার সেরা ফুটবলার, বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার, জকিগঞ্জের কৃতি সন্তান ‘আলফাজ আহমেদ’ এর সাথে আজ বিকেলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ে জকিগঞ্জের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠিত সংগঠন জকিগঞ্জ স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন অফ সাস্ট (জেডএসও) এর সদস্যরা।  আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ ডিপার্টমেন্টের আন্তঃ সেমিষ্টার ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার প্রদানের অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশ সেরা এই ফুটবলার।

এইসময় উপস্থিত ছিলেন জেডএসও’র উপদেষ্টা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিষ্টার ফয়সল আহমদ, সংগঠনের সাবেক সভাপতি কয়েছ আহমদ, বর্তমান সভাপতি তানভীর আল হাসান, সাধারণ সম্পাদক নাদের চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইমরান আহমেদ চৌধুরীসহ ফয়েজ জামান, আব্দুল্লাহ আল মামুন, বখতিয়ার উদ্দিন, মোঃ গাউসুল আলম, সৌরভ দাসসহ অন্যরা।

জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার আলফাজ আহমেদের বাড়ি জকিগঞ্জ উপজেলার বারহাল ইউনিয়নের বাটইশাল গ্রামে এবং নানা বাড়ি একই ইউনিয়নের বোরহানপুর গ্রামে।  পিতার চাকুরীর সুবাদে আলফাজ আহমদের ছোটবেলা কাটে ঢাকাতে।

১৯৭৩ সালে জন্ম নেওয়া আলফাজ আহমেদ ১৯৮৩ সালে একটি কিশোর ফুটবল প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে বড় পর্যায়ে পথচলা শুরু করেন।  পাইওনিয়ার, দ্বিতীয় বিভাগ খেলে ১৯৯১-১৯৯২ সালে রহমতগঞ্জের হয়ে তিনি যাত্রা শুরু করেন ঢাকার ঘরোয়া ফুটবলে।  ১৯৯২ সালেই নাম লেখান দেশের অন্যতম সেরা আবাহনীতে।  পরে ১৯৯৪ সালে আবাহনীতে যোগ দিয়ে ১৯৯৫ সালে চলে আসেন মোহামেডানে।

১৯৯৫ সালে নিজ যোগ্যতায় জাতীয় দলের জার্সি গায়ে দেওয়ার সুযোগ পান আলফাজ আহমেদ।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে বাংলাদেশের উজ্জ্বল তারকা আলফাজ আহমেদ ১৯৯৬ সালের আগস্টে এশিয়ার সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছিলেন।  এই অনন্য সম্মাননা এ দেশের আর কোনো ফুটবলারের ভাগ্যেই জোটেনি।  ১৯৯৫ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত টানা জাতীয় দলে নির্ভরতার সঙ্গে খেলেন আলফাজ আহমদ।  ১৯৯৯ সালের সাফ গেমসের ফাইনালে দেশের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন জকিগঞ্জের এই কৃতি ফুটবলার।  ২০০৩ সালের সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপ দলের সদস্য ছিলেন এই ফরোয়ার্ড।

টানা ২০ বছরের বেশি সময় ধরে বাংলাদেশের ফুটবলে রাজত্ব করে ২০১৩ সালে মোহামেডানের জার্সি গায়ে নিজের শেষ ম্যাচ খেলে বিদায় নেন বাংলাদেশ ফুটবল দলের ‘সর্বশেষ তারকা’দের উজ্জ্বল নাম আলফাজ আহমদে।  আলফাজের এই সময়টাকে অনেক ফুটবল বোদ্ধা ‘আলফাজ যুগ’ বলে অভিহিত করেন।

ব্যক্তি জীবনে আলফাজ আহমেদ ১৯৯৫ সালে নাজিয়া আহমেদকে বিয়ে করেন।  বড় ছেলে রেজয়ান আহমেদ, মেয়ে রনক আহমেদ এবং ছোট ছেলে রাফিয়ান আহমেদকে নিয়ে সুখের সংসার আলফাজ আহমেদের।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.