সোমবার, ২৪ জুলাই, ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
জকিগঞ্জ সর. কলেজে ছাত্রদলের স্বাগত মিছিল  » «   মুন্সীপাড়া দাখিল মাদ্রাসায় সংবর্ধনা ও মাসুক আহমদ স্মরণে মিলাদ মাহফিল  » «   ধর্মীয় সংগঠনে সম্পৃক্ত না রাখার অনুরোধ হিরঞ্জিত বিশ্বাসের  » «   পাশের সংখ্যায় শীর্ষে ইছামতি ডিগ্রী কলেজ  » «   নব-গঠিত মানিকপুর ইউপি ছাত্রদলের আনন্দ মিছিল  » «   বিভিন্ন দাবিতে জকিগঞ্জে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি  » «   জকিগঞ্জে ভোটার তালিকা হালনাগাদ আগামীকাল থেকে ; নিয়মে পরিবর্তন।  » «   জকিগঞ্জের ১৩৬টি সর. প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ  » «   লন্ডন থেকে দেশে ফেরার পর বিমানবন্দরে মাসুক উদ্দিন আহমদকে সংবর্ধনা  » «   এইচএসসি উত্তীর্ণদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতার মিষ্টি বিতরণ  » «  

শনিবার লন্ডন যাচ্ছেন খালেদা জিয়া

যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে শনিবার রাতে ঢাকা ছাড়ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

যাওয়ার আগে বৃহস্পতিবার রাতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেছেন তিনি।

লন্ডনে তারেক রহমান রয়েছেন, যিনি বিএনপিতে মায়ের পরের পদটিতে রয়েছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অনেক নেতা বলে আসছেন, প্রবাসে থাকা জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেকের ইশারাই বিএনপি পরিচালিত হয়।

নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা ঘোষণা এবং আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়ার আগে খালেদার এই লন্ডন সফর নিয়ে রাজনৈতিক মহলে আগ্রহ রয়েছে।

বরাবর গুলশানে নিজের কার্যালয়ে খালেদা জিয়া দলীয় বৈঠকগুলো করলেও বৃহস্পতিবার স্থায়ী কমিটির বৈঠকটি হয় গুলশানে তা বাড়ি ফিরোজায়।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার দলীয় নেত্রীর লন্ডন সফরের কথা সাংবাদিকদের জানান।

তিনি বলেন, “বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আগামী ১৫ জুলাই যুক্তরাজ্য সফর করবেন। আমি আপনাদেরকে অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে তিনি চোখে ও পায়ের চিকিৎসার জন্য লন্ডন যাচ্ছেন।”

কবে নাগাদ তিনি ফিরবেন- জানতে চাইলে মহাসচিব বলেন, “এটা নির্ভর করবে তার চিকিৎসার উপর।”

সর্বশেষ ২০১৫ সালে ১৬ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়া লন্ডন গিয়েছিলেন। সেবার তারেকসহ পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদ করেই দেড় মাস পর ফিরেছিলেন তিনি। তারেক ও তার স্ত্রী-সন্তানরা ছাড়াও প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী ও দুই সন্তানও সেভার লন্ডনে ছিলেন।

যুক্তরাজ্যে যাওয়ার আগে স্থায়ী কমিটির বৈঠকে কী নিয়ে আলোচনা করলেন খালেদা জিয়া- জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, বন্যা পরিস্থিতি, চিকুনগুনিয়া জ্বরের প্রাদুর্ভাব, চালসহ দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বন্যাদুর্গত এলাকায় ত্রাণের অপ্রতুলতার কথা তুলে ধরে অবিলম্বে সেখানে পর্যাপ্ত ত্রাণ পাঠানোর দাবি করেন বিএনপি মহাসচিব।

সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দলের সদস্য সংগ্রহ অভিযান সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

ফখরুল বলেন, “সারাদেশে মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের সরকার গ্রেপ্তার করছে, হয়রানি ও নির্যাতন চালাচ্ছে।”

সরকার ‘নির্বাচনের হাওয়া’ তুলে ক্ষমতার অপব্যবহার করে নির্বাচনী প্রচার চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন গত সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপির মহাসচিব।

“তারা একা হেলিকপ্টারে চড়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। আর বিরোধী দলকে প্রচার-প্রচারণার কোনো সুযোগ দিচ্ছে না। আমরা এহেন নীতির নিন্দা জানাচ্ছি।”

“আমরা বলতে চাই, অবশ্যই সরকারকে ডেমোক্রেটিক স্পেস তৈরি করতে হবে, সব দলের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে,” বলেন ফখরুল।

বৈঠকে স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, তরিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.