সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
প্রবাসীর মেয়ে ইসমত আরা বিসিএস ক্যাডার হতে চায়  » «   জকিগঞ্জ পৌর এলাকায় গ্যাসের সন্ধান; বাপেক্স কর্মকর্তাদের স্থান পরিদর্শন  » «   জকিগঞ্জে অমর একুশে বই মেলা শুরু  » «   হাজী আব্দুল আজিজ তাপাদার গার্লস একাডেমির শিক্ষা সফর  » «   বালাউট ছাহেব বাড়ি সংলগ্ন হাফিজিয়া মাদ্রাসার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন  » «   আলোর দিশারী সংস্থার পুরস্কার প্রদান ও সৌর বিদ্যুৎ লাইটের উদ্বোধন  » «   ২০১৯ সালের ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারী হাড়িকান্দি মাদ্রাসার শতবার্ষিকী পালন করা হবে  » «   ইছামতি কামিল মাদরাসার ৭২তম বার্ষিক মহাসম্মেলন আগামীকাল রবিবার  » «   নান্দিশ্রী ছাত্র কল্যাণ সংস্থার আত্মপ্রকাশ  » «   হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে মুন্সীবাজার মাদ্রাসার মাহফিল সম্পন্ন  » «  

মিটারের মূল্য দিতে হবে, মাসে মাসে ভাড়াও দিতে হবে !

নিজস্ব প্রতিবেদক: এ কেমন কথা অকারণে মিটার নষ্ট হয়ে গেলে আবার মূল্য দিতে হবে-পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকদের। পাশাপাশি প্রতি মাসে মিটারের ভাড়াও গুনতে হবে! এ নিয়ে গ্রাহকদের ক্ষোভের শেষ নেই। প্রতিনিয়ত পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহকদের অতিরিক্ত ভৌতিক বিলের জালা সহ্য হচ্ছে না। এরই মাঝে মিটারের মূল্য ও ভাড়া নিয়ে গ্রাহকরা সীমাহীন অসন্তুষ্ট।

শুনুন জকিগঞ্জ পৌর এলাকার আনন্দপুর গ্রামের লন্ডন প্রবাসী আল মাহমুদ রুমেলের (এক গ্রাহক) কথা: আমি গত মাসে আমার বাড়ির মিটার পরিবর্তন করার জন্য আবেদন করি পল্লীবিদুৎ এ তার পর ২০ দিন পরে তারা সেটা পরিবর্তন করে দিয়েছে এবং সেটার জন্য আমি ১০০টাকা পরিষদ করা হয় ফি হিসাবে। কিন্তুু এই মাসে আমার কারেন্টের বিলের সাথে মিটারের মূল্য ১৫০০ টাকা সংযোজন করে বিল পাঠিয়েছে অথচ আমি প্রতিমাসে মিটার ভাড়া হিসাবে ১৫টাকা দিয়ে থাকি, কথা হল আমি যদি মিটারের বাড়া দিতে হয় প্রতি মাসে তাহলে কেন আমি মিটারের দাম দিব?

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জকিগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম ইছাহাক আলী জকিগঞ্জ বার্তাকে জানান, শুরুতে মিটার কেনা লাগে না। যদি মিটার প্রাকৃতিকভাবে নষ্ট হয়ে যায়, সেটি বদলে দেওয়া যায়। অন্যথায় তাকে টাকা দিতে হবে। তবে সেই মিটার (রুমেলের) প্রাকৃতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এমন প্রশ্ন করলে তিনি মানতে নারাজ। পরে অফিসের লোকজনকে দোষারুপ করেন।

তাহলে প্র্রতিমাসে মিটার ভাড়া গ্রাহক দেবে কেনো? এমন প্রশ্নের সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।  অতিরিক্ত বিল নিয়ে গ্রাহকদের ক্ষোভের কথা তাকে স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি গ্রাহকদের দায়ী করে বলেছেন, গ্রাহকরা ঠিক মতো ইউনিট দেখেন না বা সুনির্দিষ্ট বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দেননা।

মূলত মিটার রিডার ও তার অফিসের সংশ্লিষ্টদের অনিয়মকে দায়ী করেছেন ভূক্তভোগী গ্রাহকেরা।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.