শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শুক্রবার হেলিকপ্টারে জকিগঞ্জ আসছেন হেফাজত মহাসচিব  » «   কাজলসার সোনাপুরে লোকমান চৌধুরীর সমর্থনে মতবিনিময় সভা  » «   সীমান্তবর্তী এলাকায় একদল ফিনিক্সের মাতৃভাষা চর্চা কার্যক্রম  » «   আবারও সিলেটের শ্রেষ্ঠ ওসি হলেন জকিগঞ্জ থানার হাবিবুর রহমান  » «   ফের সিলেটের শ্রেষ্ঠ সার্কেল হলেন জকিগঞ্জের অ্যাডিশনাল এসপি সুদীপ্ত রায়  » «   নিখোঁজ হওয়া সেই হাসানকে পাওয়া গেছে  » «   ক্যাডেটহোম জকিগঞ্জের অভিভাবক সমাবেশ ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা  » «   আটগ্রামে নিখোঁজ ৭ম শ্রেণীর ছাত্রের সন্ধান চায় পরিবার  » «   জকিগঞ্জে স্বরস্বতী পুজা উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে হাফিজ মজুমদার এমপি  » «   বারহালে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রবাসীর অর্থ বিতরণ  » «  

মা তোমায় খুব ভালোবাসি

হুমায়রা আয়েশা আহমেদ: মা এমন একটি শব্দ, যার গভীরতা বিশাল। মাকে নিয়ে লিখতে গেলে লেখা শেষ হবে না। এ নিয়ে লেখার কোনো যোগ্যতাই আমার নেই। তারপরও এই মা দিবসে মা তোমাকে নিয়ে লেখার দুঃসাহস করলাম।
সন্তানদের যতœটা শুরু হয় ঠিক সেদিন থেকে, যেদিন থেকে একজন মা খবর পায় যে, তার সন্তান তার জীবনে আসতে চলেছে। মা তুমি সেদিন থেকে আমার যতœ নিয়েছ যখন আমার মধ্যে প্রাণটা আসেনি। আমার আসার খবর শোনার পর থেকেই সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়েছে তোমাকে। কিন্তু সেই সাবধানতা তোমার নিজের জন্য ছিল না, তুমি সাবধানে থেকেছ আমার জন্য। আমার যেন কোনো ক্ষতি না হয়, সেই ভেবে তোমাকে কতকিছু থেকে বিরত থাকতে হয়েছে। তোমাকে কত শখ-আহ্লাদ বিসর্জন দিয়ে বিভিন্ন ধরনের নিয়মকানুনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। এমন অনেক খাবার খেতে হয়েছে, যেগুলো তোমার পছন্দ নয়, তারপরও খেয়েছ আমার ভালোর জন্য। খেতে ইচ্ছে না করলেও খেতে হয়েছে তোমাকে। কারণ তুমি জানতে তুমি না খেলে আমিও না খেয়ে থাকব।
দিনের পরদিন বিভিন্ন ওষুধ খেতে হয়েছে তোমাকে। রাতে ঠিক করে ঘুমটাও হয়নি তোমার। অনেক রাত আমি আসব ভেবেই পার করে দিয়েছে। আমি যখন তোমার ভেতরে ছটফট (হাত-পা ছোড়তাম) করতাম তোমার তখন কষ্ট হতো; কিন্তু তা-ও তুমি হাসতে; তুমি হাসিমুখে আমাকে অনুভব করতে। তারপর যেদিন তোমার কোলজুড়ে এলাম, সেদিন তোমার খুশির অন্ত ছিল না। ছোটবেলায় কতই না যন্ত্রণা দিয়েছি তোমাকে। কত দুষ্টুমি করেছি তারপরও বুকে জড়িয়ে আদর করেছ।
তারপর যখন আস্তে আস্তে বড় হতে শুরু করলাম, তখন ভালো খারাপের পার্থক্য বুঝিয়েছ। সঠিক পথ বেছে নিতে সাহায্য করেছ। সবসময় ভালো উপদেশ দিয়েছ। যখন ভুল করেছি শাসন করেছ। কিন্তু যখন বকা দিতে, তখন খুব রাগ হতো। তারপর যখন বুকে জড়িয়ে বোঝাতে তখন বুঝতাম যে, আমার ভালোর জন্যই সবটা ছিল।
সবাই ঠিক কথাই বলেÑ মায়ের ঋণ কোনোদিন শোধ করা যায় না। মা তো মা-ই হয়। মায়ের সঙ্গে পৃথিবীর আর কোনোকিছুর তুলনা হয় না। জানি মা, আমার অজান্তেই অনেক কষ্ট দিয়ে ফেলেছি তোমাকে। হয়তো এখনও অনেক কষ্ট দিই। আমার কারণে বারবার তোমার চোখ ভিজে যায়। তারপরও তোমার ভালোবাসার কমতি হয় না। আর সেজন্যই তুমি ‘মা’। মা, তোমাকে অনেক ভালোবাসি। আর এই মা দিবসে পৃথিবীর সব মায়ের প্রতি রইল আমার আন্তরিক শ্রদ্ধা ও অনেক অনেক শুভেচ্ছা, ভালোবাসা।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.