বুধবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
জকিগঞ্জের মানিকপুরে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময়  » «   বিরশ্রীর বড়চালিয়ায় ২৪, ২৫ ও ২৬জানু. সংকীর্তন মহোৎসব  » «   এবার জকিগঞ্জে বিধবার পাকাঘর মাটিতে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে  » «   হাড়িকান্দি মাদ্রাসায় গোটারগ্রাম প্রবাসী সংস্থার ১লক্ষ টাকা অনুদান  » «   বৃদ্ধ চাচাকে নির্যাতনকারি ছুবহান সহ ৪জন কারাগারে, জকিগঞ্জ বার্তাকে অ্যাডিশনাল এসপি  » «   সিলেটে শ্রেষ্ঠ হলেন জকিগঞ্জ সার্কেল এর অ্যাডিশনাল এসপি  » «   শতবর্ষী চাচাকে নির্যাতনকারি সেই ভাতিজা আটক  » «   সেই শিশুর পাশে জকিগঞ্জ প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্থা  » «   অমানবিক…..  » «   অসহায় মজলুম মানুষের খিদমতে নিজেকে উৎসর্গ করুন: আল্লামা ইমাদ উদ্দিন ফুলতলী  » «  

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ী আর নেই

চলে গেলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত রাজনীতিক ও ভারতের সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স হাসপাতালে (এইএমএস) লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) বিকেল পাঁচটা ৫ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মৃত্যুকালে চিরকুমার অটলবিহারীর বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর।

বাজপেয়ীর মৃত্যু সংবাদে গভীর শোকপ্রকাশ করে একটি টুইট করেছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

এনডিটিভি জানিয়েছে, গত ১১ জুন কিডনি সংক্রামণ, মূত্র ত্যাগে জটিলতা, শ্বাসকষ্ট জনিত কারণে এইমস হাসপাতালে ভর্তি হন বাজপেয়ী। তিনি ডায়াবেটিকেও ভুগছিলেন। একটি কিডনিতে চলছিল তার শরীর। ২০০৯ সালে স্ট্রোক করে ডিমনেশিয়া রোগে আক্রান্ত হন বাজপেয়ী। গত মঙ্গলবার থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। ফুসফুস ও অন্ত্রে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগেই বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এসময় মোদীর সঙ্গে ছিলেন বিজেপি সভাপতি আমিত শাহ।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাজনীতির আদর্শ বরাবরই বাজপেয়ীর কাছে ছিল প্রথম প্রাধান্য। তার আমলেই ২০০২ সালে গুজরাটে হিন্দু-মুসলিম ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়েছিল। তখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বাজপেয়ী তাকে রাজনৈতিক আদর্শ পালনের পরামর্শ দিয়েছিলেন।

ভারত যদি ধর্মনিরপেক্ষ না হয়, তাহলে ভারত ভারতই নয়— এমন মন্তব্য করেছিলেন প্রয়াত এই বিজেপি নেতা।

বাজপেয়ীর জন্ম ১৯২৪ সালে গোয়ালিয়রে। তার বাবা কৃষ্ণবিহারী বাজপেয়ী একজন কবি ছিলেন।

দীর্ঘ এবং ব্যস্ত রাজনৈতিক জীবনের ফাঁকে অবসর খুঁজে নিয়ে অটলবিহারীও কাব্যচর্চা করতেন নিয়মিত। ছাত্রাবস্থায় গোয়ালিয়রেই আর্যসমাজের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন তিনি।

তারপরে যোগ দেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘে। জনসংঘের প্রতিষ্ঠাতা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের অত্যন্ত প্রিয়পাত্র হয়ে ওঠেন পরবর্তী কালে। ১৯৭৭ সালে জনতা পার্টি সরকারে মন্ত্রী হন তিনি। কিন্তুম পরে সংঘপন্থী অন্য নেতাদের সঙ্গে বাজপেয়ীও জনতা পার্টি ছেড়ে বেরিয়ে এসে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) গঠন করেন। ১৯৮০ সালে প্রতিষ্ঠিত ভারতীয় জনতা পার্টির প্রথম সভাপতিও হন বাজপেয়ী।

তার ১৬ বছর পরে প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হন। ২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ-র হার হয়। পরাজয়ের দায় নিজের কাঁধে নিয়ে প্রধান বিরোধী দলনেতার পদ নিতে অস্বীকার করেন তিনি। ক্রমশ সক্রিয় রাজনীতি থেকে দূরেও সরিয়ে নেন নিজেকে। এবার জীবন থেকেই বিদায় নিয়ে নিলেন বাজপেয়ী।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও কিংবদন্তি এই রাজনীতিকের মৃত্যুতে ভারতের রাজনৈতিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.