রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শুক্রবার হেলিকপ্টারে জকিগঞ্জ আসছেন হেফাজত মহাসচিব  » «   কাজলসার সোনাপুরে লোকমান চৌধুরীর সমর্থনে মতবিনিময় সভা  » «   সীমান্তবর্তী এলাকায় একদল ফিনিক্সের মাতৃভাষা চর্চা কার্যক্রম  » «   আবারও সিলেটের শ্রেষ্ঠ ওসি হলেন জকিগঞ্জ থানার হাবিবুর রহমান  » «   ফের সিলেটের শ্রেষ্ঠ সার্কেল হলেন জকিগঞ্জের অ্যাডিশনাল এসপি সুদীপ্ত রায়  » «   নিখোঁজ হওয়া সেই হাসানকে পাওয়া গেছে  » «   ক্যাডেটহোম জকিগঞ্জের অভিভাবক সমাবেশ ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা  » «   আটগ্রামে নিখোঁজ ৭ম শ্রেণীর ছাত্রের সন্ধান চায় পরিবার  » «   জকিগঞ্জে স্বরস্বতী পুজা উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে হাফিজ মজুমদার এমপি  » «   বারহালে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রবাসীর অর্থ বিতরণ  » «  

পায়ে ধরে কান্নাকাটি করলেও মন গলেনি কেন্দ্র সচিবের, জকিগঞ্জ বার্তাকে পরীক্ষার্থী


নিজস্ব প্রতিবেদক: এসএসসি পরীক্ষার শেষ দিন ছিল গত শনিবার। পরীক্ষা ছিল ভূগোল। প্রতিদিনের মতো পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে আমলসীদের নানা বাড়ি থেকে সিএনজি যোগে বের হই। মেইন সড়কে উঠার আগেই অটোরিকসাটির চাকা পাংচার হয়ে যায। কতক্ষণ গাড়ির অপেক্ষা করে না পেয়ে ফের নানা বাড়ি চলে যাই। মামাকে বিষয়টি বলার পর দ্রুত একটি মোটরসাইকেল যোগাড় করে এলাকার একজনকে দিয়ে কেন্দ্রে পাঠান। সেখানে যাওয়ার পর সময় দেখেছি অনুমান ১০টা ২৮মিনিট হবে। কেন্দ্র সচিব, ইছামতি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজিম উদ্দিন স্যারের পায়ে ধরে বলেছি, আমি আপনার মেয়ের মতো, দয়া করে আমাকে পরীক্ষা নিতে দিন। তিনি পাত্তাই দেননি। বার বার তার পায়ে ধরে কান্নাকাটি করে বলেছিলাম স্যার আমাকে পরীক্ষা নিতে দেন। যত তাকে বলেছি, তত তিনি চরম বিরক্ত হয়েছেন। তবু্ও তার মন গলেনি। আমার কান্না দেখে উপস্থিত সবাই স্যারকে অনুরোধ করেছেন। অথচ তিনি কঠিন ছিলেন। সবশেষে পুলিশের সহযোগিতা চাইলাম। পুলিশ ভাইদের অনুরোধ উপেক্ষা করলেন তিনি। তারা বললেন বোন তোমার জন্য চেষ্টা করলাম, কিন্তু তিনি তাতে সাড়া দিলেন না । আমাদের কিছু আর করার নেই। উপরোক্ত কথাগুলো জকিগঞ্জ বার্তাকে বললো হাফিজ মজুমদার বিদ্যানিকেতন থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী জেসমিন আক্তার। সে জানায় বিগত প্রতিটি পরীক্ষা ভালো হয়েছিল। সে জন্য স্যারকে আরো বেশি অনুরোধ করেছিলাম। আমি এখনও সেদিনের ঘটনায় বিস্মিত ও হতবাক। একটি বছরের জন্য তিনি আমাকে পিছিয়ে দিয়েছেন। আমার ক্ষতির জন্য তিনিই একমাত্র দায়ী। মানুষ এত নিষ্টুর হতে পারে? এতো কঠোর হতে পারে? সেদিনের কষ্ট আমাকে আজীবন বয়ে বেড়াতে হবে।
গত ২৫ফেব্রুয়ারি এ সংক্রান্ত সংবাদ ‘এসএসসির শেষ পরীক্ষা দিতে পারেনি জেসমিন’ জকিগঞ্জ বার্তায় পরিবেশিত হয়। সেদিন কেন্দ্র সচিব আজিম উদ্দিন জকিগঞ্জ বার্তাকে বলেছিলেন, অতিরিক্ত দেরি হওয়াতে পরীক্ষা দিতে পারেনি। ১০টা ৪০মিনিটে ঐ মেয়েটি উপস্থিত হয়। সেহেতু পরীক্ষা নেওয়া যায়নি।
অবশ্য সেদিনের সংবাদ পরিবেশিত হওয়ার পর অসংখ্য ব্যক্তি তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তার কঠোরতার বিষয়টি জকিগঞ্জ বার্তার পক্ষ থেকে জানতে চেয়েছেন।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.