শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
যথাযথ মর্যাদায় জকিগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ  » «   সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে জকিগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির কর্মী সভা  » «   শনিবার দিবারাত্রি বালাউটি ছাহেব বাড়ি ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:) মাহফিল  » «   বাবুর বাজারের সন্নিকটে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৩  » «   জকিগঞ্জে বিশিষ্ট মুরব্বী মঈন চৌধুরীর দাফন  » «   জকিগঞ্জের কুতুব উদ্দিন জেলা মাধ্য. শিক্ষক সমিতির সভাপতি হওয়ায় সংবর্ধনা  » «   পোষ্ট মর্টেম শেষে জকিগঞ্জের ফয়জুর রহমানের দাফন  » «   দি স্টুডেন্ট ডেভেলপমেন্ট ক্লাব(চক-বুরহানপুর)এর বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত  » «   মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে হাফিজ মজুমদার এর নির্বাচনী প্রচারণা শুরু  » «   জকিগঞ্জে আবারও নিখোঁজের পর মৃতদেহ উদ্ধার  » «  

গুপ্তধনের সন্ধানে সারা জীবন; অবশেষে চিরবিদায় নিলেন গোলাপগঞ্জের কোটিপতি আজমল

আব্দুল আহাদঃ গুপ্তধনের সন্ধানে জীবনের অধিকাংশ সময় ব্যয় করে ব্যর্থ হয়ে শেষ পর্যন্ত চিরবিদায় নিতে হল গোলাপগঞ্জের এক কোটিপতি কে। কোটি বা শত কোটি টাকা নয়, হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়ার স্বপ্ন ছিল তার চোখে। গুপ্তধনের মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়া সম্ভব, এমন গল্প সবসময় শোনা যেত তার মুখে। গুপ্তধন সংগ্রহের লক্ষে নিজের কোটি কোটি টাকার সম্পদ হাতছাড়া করেছেন, দেশি-বিদেশী লোক দ্বারা প্রতারিত হয়েছেন এ প্রবাসী সহজ সরল মানুষ। শেষ পর্যন্ত জীবন যুদ্ধের কাছে হার মেনে চিরদিনের জন্য তিনি বিদায় নিতে হল।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের কতোয়ালপুর (খারিপার) গ্রামের মৃত শফিক উদ্দিন আহমদ এর পুত্র লন্ডন প্রবাসী ফারুক আহমদ আজমল একজন ধনাঢ্য ব্যক্তি। দেশে বিদেশে তার কোটি কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। এত সম্পদ থাকার পরও তার আকাঙ্খা শেষ হয়নি, তিনি কোটি বা শত কোটি টাকা নয়, হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন।

কোন এক বিশেষ মুহুর্তে মৃত্যুর পূর্বে প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, ব্রিটিশ আমলে কোন এক সময় দেশের বিভিন্ন মৌজা সীমানায় বজ্রপাত কে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বিশেষ পদার্থ দিয়ে তৈরী পাথর পুতেঁ রাখা হয়েছিল। বছরের পর বছর বজ্রপাত নিয়ন্ত্রণ করে ঐ সব যন্ত্র বিশেষ একটি শক্তিতে পরিণত হয়েছে। ঐসব পাথর বা যন্ত্রকে স্থানীয়ভাবে অনেকেই ম্যাগনেট পাথর বা মৌজা পিলার হিসেবে অভিহিত করে থাকেন। ফারুক আহমদ আজমলের তথ্য অনুযায়ী সিলেটের যারা বড় বড় ধনী, হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক তাদের অনেকেই ম্যাগনেট পাথরের ব্যবসা করে ধনী হয়েছেন।

হোমল্যান্ড লাইফ ইন্সুরেন্সের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক, সিলেটের একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, গোলাপগঞ্জের অন্যতম ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান ফারুক আহমদ আজমল (৬০) বিগত প্রায় বিশ বছর ধরে এই গুপ্তধন সংগ্রহের কাজে ব্যস্ত ছিলেন। তার উপশহরের বাসায় সবসময় ছিল দেশের বিভিন্ন প্রান্তের লোকজনের আনাগোনা। তারা গুপ্তধনের সংবাদ নিয়ে তার কাছে এলে তিনি কাউকেই খালি হাতে ফিরিয়ে দিতেন না। ম্যাগনেট পাথরের সন্ধান পেলে নিজের কোটি টাকা মূল্যের দামি গাড়ি নিয়ে যত দুর্গম এলাকাই হোক না কেন কোন প্রতিবন্ধকতা তাকে আটকে রাখতে পারতো না। সংবাদ পাওয়া মাত্রই নিজ অনুসারীদের নিয়ে চলে যেতেন ঐ স্থানে।

তবে প্রতিবেদকের সঙ্গে ক্ষোভ আর দুঃখের কথা উলে¬খ করে বললেন দেশের হাজার নয়, লক্ষ লক্ষ মানুষ এই ধান্দায় পড়ে অনেকেই পথের ভিখারী হয়েছেন। আবার অনেকেই কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখে বাড়ী-ঘর বিক্রি করে নিঃস্ব হয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন যাপন করছেন। ফারুক আহমদ আজমল এ ব্যাপারে এতই আসক্ত ছিলেন যে কেউ ম্যাগনেট পাথরের সন্ধান দিলে নিজেকে আর স্থির রাখতে পারতেন না।

এলাকার মানুষের অনেকেরই প্রশ্ন ফারুক আহমদ আজমলের লন্ডনে বেশ ক’টি রেস্টুরেন্ট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকার পর তিনি সেখানে না থেকে স্ত্রী-সন্তানদের ফেলে দীর্ঘ সময় কেন দেশে থাকেন? এছাড়া বিদেশের সব অর্জিত অর্থ দেশে এনে কি করেন? মানুষের এই প্রশ্নগুলোর উত্তর জানতে গত কিছুদিন পূর্বে তার সঙ্গে সাক্ষাত করলে তিনি গুপ্তধনের জগত সম্পর্কে অনেক কিছু জানালেন। তার তথ্যে জানা গেল ম্যাগনেট পাথর এমনই একটি পদার্থ তার শক্তি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন, মহাকাশ গবেষনা যন্ত্র তৈরী সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের জন্ম হয়। এটা পরমানুবিক শক্তিধর রাষ্ট্র ছাড়া অন্য কেহ ব্যবহার করার সুযোগ নেই। যার মূল্য হাজার হাজার কোটি টাকা এমনকি লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা ও হতে পারে।

তার কথাবার্তা শুনে মনে হয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে দামী বস্তুর হচ্ছে এই ম্যাগনেট পাথর। তিনি জানালেন দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় অসংখ্য লোক এই গুপ্তধন প্রাপ্তির জন্য খেয়ে- না খেয়ে সময় ও অর্থ ব্যয় করছে।

তিনি এ ব্যাপারে তার জীবনের অনেক ব্যর্থতা ও অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে বললেন ৭/৮ বছর আগে খুলনার ডুমুরীয়া উপজেলায় নারায়ণ চন্দ্র নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ১৩ কোটি টাকা দিয়ে ম্যাগনেট পাথর ক্রয় করেছিলেন। পাথরটি বিভিন্ন প্যাকিং পেপার দ্বারা সুরক্ষিত করে একটি কক্ষে রেখে পার্শ্ববর্তী কক্ষে খাবারের জন্য যান। কিছুক্ষণ পর ঐ প্যাকিং করা প্যাকেটটি নিজের কোটি টাকা মূল্যের জীপে তুলে সিলেটে আনার পর খুলে দেখতে পান ভিতরে দু’টুকরো ইট রয়েছে। নিজ হাতের প্যাকিং করা প্যাকেটটিতে কিভাবে ইট ঢুকলো এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানালেন যখন খাবারের জন্য পার্শ্ববর্তী কক্ষে গিয়ে ঘন্টাখানেক সময় ব্যয় করেছিলেন তখন নারায়ণ চন্দ্রের লোক ইট দিয়ে অনুরূপভাবে একটি প্যাকেট করে ঐ স্থানে রেখে দেয়। সরলমনে কোন সন্দেহ না করে তিনি প্যাকেটটি নিয়ে আসার পর ম্যাগনেট পাথরের বদলে ইটের টুকরো পেলেন। পরবর্তীতে খুলনায় গিয়ে জানতে পারলেন নারায়ণ চন্দ্র তার বাড়ীঘর বিক্রি করে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কলকাতায় চলে গেছে। অনেক খোঁজাখোজি করে নারায়ণ চন্দ্রের কোন সন্ধান পাননি বলে জানালেন।

সম্প্রতি একইভাবে রাজধানী ঢাকার গুলশানের একটি চক্র বিদেশী লোকদের সংগ্রহ করে ম্যাগনেট পাথরের বিষয়টি নিয়ে ফারুক আহমদ আজমলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করলে তিনি ঐ ব্যবসায় বিনিয়োগ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। প্রতিদিন ৫০/৬০ হাজার টাকা এসএ পরিবহন ও বিকাশের মাধ্যমে তিনি পাঠাতেন বলে প্রতিবেদককে জানান। এভাবে বেশ কিছুদিন ধরে প্রায় ১০ কোটি টাকা তিনি ঐসব লোকজনকে দিয়েছেন বলে প্রতিবেদককে জানালেন। এক পর্যায়ে তিনি স্বীকার করলেন ঢাকার ঐ চক্র তার কাছ থেকে প্রায় ১০ কোটি টাকা নেয়ার পর এখন তারা সরে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এ জগতটি যে স্বচ্ছ নয়, অন্ধকার এখানে লোভে পড়ার পর মানুষ আর তাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে না এ বিষয়টি তিনি প্রতিবেদকের কাছে স্বীকার করলেন।

জীবনের অর্জিত কোটি কোটি টাকা ম্যাগনেট পাথর আর সীমানা পিলার নামক এক প্রকার বস্তুর পিছনে ব্যয় করে কোনদিনই আশার আলো দেখতে পাননি গোলাপগঞ্জের কোটিপতি পরিবারের সন্তান ফারুক আহমদ আজমল। কোটি কোটি টাকা হারিয়ে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়লে সম্প্রতি তার শরীরে নানা ধরনের রোগ বাসা করে।

একদিকে বড়ধরনের আর্থিক ক্ষতি, অন্যদিকে শারীরিক অসুস্থ্যতা মৃত্যুর দিকে তাকে ধাবিত করলে গত শনিবার ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকায় তিনি মারা যান। তার পরিচিত অনেকেরই বক্তব্য হচ্ছে গুপ্তধন প্রাপ্তির বিষয়টি একটি অশনি সংকেত। ফারুক আহমদ আজমলের মত মানুষ কোটি কোটি টাকা এ পথে ব্যয় করে শেষ পর্যন্ত মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে চিরবিদায় নিতে হয়েছে। কোন মানুষ যেন এ পথটি আর বেছে না নেয়।

সূত্রঃ দৈনিক জালালাবাদ 

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.