শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শুক্রবার হেলিকপ্টারে জকিগঞ্জ আসছেন হেফাজত মহাসচিব  » «   কাজলসার সোনাপুরে লোকমান চৌধুরীর সমর্থনে মতবিনিময় সভা  » «   সীমান্তবর্তী এলাকায় একদল ফিনিক্সের মাতৃভাষা চর্চা কার্যক্রম  » «   আবারও সিলেটের শ্রেষ্ঠ ওসি হলেন জকিগঞ্জ থানার হাবিবুর রহমান  » «   ফের সিলেটের শ্রেষ্ঠ সার্কেল হলেন জকিগঞ্জের অ্যাডিশনাল এসপি সুদীপ্ত রায়  » «   নিখোঁজ হওয়া সেই হাসানকে পাওয়া গেছে  » «   ক্যাডেটহোম জকিগঞ্জের অভিভাবক সমাবেশ ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা  » «   আটগ্রামে নিখোঁজ ৭ম শ্রেণীর ছাত্রের সন্ধান চায় পরিবার  » «   জকিগঞ্জে স্বরস্বতী পুজা উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে হাফিজ মজুমদার এমপি  » «   বারহালে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রবাসীর অর্থ বিতরণ  » «  

ঈদের প্রাক্কালে বন্যা, ভূমিধসে বেহাল আসাম

ছবি :: বদরপুর-লামডিং রেল লাইনে ধস।

তাজ উদ্দিন, শিলচর (আসাম), ১৫ জুন : আগামীকাল শনিবার পবিত্র ঈদ পালন করবেন আসামবাসী। তবে এর প্রাক্কালে টানা বৃষ্টিপাতে নাকাল বরাক উপত্যকার তিন জেলা সহ আসামের এক বিরাট অংশ। রোজার শেষ দু-তিনটি দিন অনেকেই ঘরছাড়া হয়ে বিভিন্ন স্কুলের আশ্রয় শিবিরে মাথা গুঁজেছেন। অনেক এলাকা এখন পানির নিচে। বৃষ্টি থামার নামই নেই। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। এদিকে, বিভিন্ন জায়গায় ধস নামার ফলে বরাক উপত্যকার কাছাড়, করিমগঞ্জ ও হাইলাকান্দি জেলা এখন আসামের বাকি অংশ থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ডিমা হাসাও জেলায় রেললাইন উপড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার পরপর দুদিন ধস নেমেছে রেলপথে। এর ফলে মিজোরাম এবং ত্রিপুরা রাজ্যও ভারতের বাকি অংশ থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। দু-একদিনের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব না হলে এখানে খাদ্যসামগ্রীর সংকট দেখা দিতে পারে।
বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে হাইলাকান্দি জেলায়। ফসলের প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। উপত্যকার বরাক, কাটাখাল, লঙ্গাই, কুশিয়ারা সহ ছোট বড় সব নদীতে জল বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্তে থাকা বি এস এফের কয়েকটি সীমান্ত চৌকিও জলমগ্ন হয়ে পড়েছে।

ছবি :: পাথারকান্দিতে ভেঙে গেছে বাঁধ।

শুক্রবার রমজানের শেষ জুম্মার সময় তিনদিনে প্রথমবার আকাশ অনেকটা পরিষ্কার দেখা গেছে। আর বৃষ্টি না হলে জল কমার আশা করা যেতে পারে। তবে এবারের বন্যার দুর্ভোগের ফলে ঈদের আনন্দ অনেকাংশে ম্লান হয়ে গেছে বলা যায়। শিলচরের ইটখলা ইদগাহ এখন জলের নিচে। ইটখলায় জুম্মার নামাজ পড়ানো যায়নি। প্রতি বছর ইটখলাতেই ঈদের বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.