রবিবার, ১৯ আগষ্ট, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
মৌলভী ছাইর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন   » «   শাহগলী আদর্শ শিশু বিদ্যানিকেতনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালন  » «   বারহালে মাদক,সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আলোচনা সভা সম্পন্ন  » «   আটগ্রামে স্কুল ছাত্র সাজুর ইন্তেকাল  » «   আটগ্রামে সরকারি গোপাট উন্মুক্ত করতে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ  » «   কালিগঞ্জ বাজারে একটি দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি  » «   রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা কুন্টি মিয়ার দাফন সম্পন্ন  » «   জকিগঞ্জে ডিজিটাল কনটেন্ট বিষয়ে দিন ব্যাপি কর্মশালা  » «   নৌকার সমর্থনে মাসুক উদ্দিন আহমদের গণ সংযোগ  » «   ৯ইউপি ও ১পৌরসভায় ত্রাণ বিতরণ করবে জকিগঞ্জ সোসাইটি অব ইউএসএ ইন্ক  » «  

ইফতারী সংস্কৃতি….

কালাম আজাদ; ইফতারীর সংস্কৃতি বিষয়ে গতকাল দু’লাইন লিখেছিলাম। ঘনিষ্ঠ অনেকে নারাজ হয়ছেন। আমি দরীদ্র শ্রেণীর মানুষ, জীবন এবং পারিপার্শ্ব থেকে দারীদ্রকে উপলব্ধি করি।
দুটি মেয়ে এবং এক ছেলের বিয়ে দিয়েছি।তিন বিয়তে মোট সত্তর হাজার টাকা খরচ করেছি। চরম বেহায়ার মতো তথাকথিত সামাজিকতা বর্জন করে শুধু ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতায় বিয়েগুলি হয়েছে। আমার বেয়াই-বেয়ানরা আমার দারীদ্র এবং সাদাসিধা মানসিকতাকে সম্মান করেছেন। এখানে উল্লেখ করতে চাই, আমার সম্মন্ধী পরিবারগুলো রাজশাহী,গাজীপুর এবং মৌলবী বাজারের উচ্চ শিক্ষিত ও সম্মানীয়।
তারা যদি যুগের রসুমাত পন্থি হতেন আমি বাচ্চাদের বিয়ে দিতে পারতাম না,বা দিতাম না। (আলহামদুলিল্লাহ, এদের দুজন ইউরোপে পড়াশোনা করেছে এবং তিনজনই সফল মানুষ।)

না, আমি সমাজচ্যুত হইনি। যারা এক সময় মুখটিপে হেসেছেন,পরে তারাও সম্মান জানিয়েছেন।

এখন ইফতারীতে আসি। ইফতারী ততক্ষণই দ্বীনদারী যতক্ষণ এটিতে সাওয়াবের নিয়ত ও পদ্ধতি থাকে। লরি বোঝাই ইফতারী দিয়ে আভিজাত্য প্রদর্শন পুঁজিবাদী অপসংস্কৃতি! আর যারা এমনটি ইফতারী দাবী করে তারা নিচাশয়।
আমাদের ধনিকশ্রেণীর সংস্কৃতি নিয়ে আমার কোনও কথা নেই। কিন্তু ধর্মের মোড়কে যখন তারা পাপাচার করেন তখন মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্ত শ্রেণী,হীনমন্য অনুকরণের চাপে পিষ্ঠ হয়। তারা না পারে কইতে না পারে সইতে।

একজন আমার শ্বশুরের ইফতারী খেয়েছি কিনা, প্রশ্ন করেছেন। আমি শ্বশুর পাইনি। শ্বাশুড়ী প্রতি রমজানে ২০০টাকা মানিঅর্ডারে পাঠাতেন। আমি বাকী রমজানে ঐ টাকায় ইফতার কিনতাম।
হ্যাঁ, আমি আমার মেয়েদেরকে শ্বাশুড়ীর নিয়মে যৎসামান্য টাকা দিই। সাওয়াবের আশায় দিই।
আল্লার কসম, আমি স্বজন প্রিয়জনদের ইফতার করানোর পক্ষে, কিন্তু বাধ্যতামূলক ইফতারী অত্যাচারের বিপক্ষে।
বাচ্চাদের বিয়ের কথা আগে বলেছি।
এটি এজন্যে যে, বিয়েতে জাকজমক করতে গিয়ে দুইপক্ষ সম্মানীয় হননা, বরং ক্ষতিগ্রস্থ হন। মনে রাখুন, বিয়ে একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান। আর আল্লার রাসুল সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এই মর্মে বলেছেন যে, সেই বিয়েই সর্বাপেক্ষা বরকতময়,যেটিতে সবচেয়ে কম খরচ করা হয়।
আল্লার বান্দারা, বিয়েকে সহজ করুন,অবৈধ যৌনাচার মুক্ত মুসলিম সমাজ গড়ার স্বার্থে।
আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।২২/৫/১৮

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.