মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
জকিগঞ্জে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে র‌্যালি ও আলোচনা সভা  » «   বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিহত ইমামের পরিবারকে প্রবাসীদের আর্থিক সহায়তা  » «   ২৩ দিনেও খোঁজ মেলেনি জকিগঞ্জের স্কুলছাত্র রুবেলের  » «   জকিগঞ্জে বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুন; ৬শতাধিক ব্রয়লার মোরগ পুড়ে ছাই  » «   মোস্তাক সরকারকে জকিগঞ্জ অফিসার্স ক্লাবের বিদায় সংবর্ধনা  » «   কাস্টমঘাটে প্রতিমা বিসর্জন উপলক্ষ্যে হাজারো মানুষের ভিড়  » «   নবাগত জকিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে বরণ  » «   জকিগঞ্জের পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে মাসুক উদ্দিন আহমদ  » «   জকিগঞ্জে পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে অ্যাড. মোশতাক সহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ  » «   কানাইঘাটে দুর্গাপূজার মন্ডপ পরিদর্শনে ড. আহমদ আল কবির  » «  

আসামে নাগরিকপঞ্জি নিয়ে উৎকণ্ঠা চরমে

তাজ উদ্দিন, শিলচর (আসাম):: আগামী ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ ইংরেজি মধ্যরাতে আসামে নাগরিক পঞ্জি, যাকে সংক্ষেপে এন আর সি বলা হচ্ছে, খসড়া প্রকাশিত হতে চলেছে। ভারতের এই অঙ্গরাজ্যের অানুমানিক জনসংখ্যা ৩ কোটি ২০ লক্ষ। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এন আর সি-র খসড়া প্রকাশ করা সম্ভব হবে না বলে সেটা পিছিয়ে দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকার আবেদনও জানায়। কিন্তু মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট সেই আর্জি খারিজ করে জানিয়েছে, অন্তত ২ কোটি ৩৮ লক্ষের নাম অন্তর্ভুক্ত করে আংশিক খসড়া ৩১ তারিখ প্রকাশ করতেই হবে। স্বাভাবিকভাবে এন আর সি কর্মীদের এখন নাওয়া খাওয়ার সময় পর্যন্ত নেই। দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে নাগরিকপঞ্জির খসড়া তৈরির কাজ করছেন তাঁরা। এন আর সি-তে সেইসব লোকের বা পরিবারের সদস্যদের নাম রাখা হচ্ছে যারা ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চ মধ্যরাত্রি পর্যন্ত ভারতে এসেছেন কিংবা ভারতে এর আগে থেকে বসবাস করছেন। কিন্তু কথা হল অনেকের কাছে আবার প্রয়োজনীয় নথিপত্র নেই। যার ফলে নিজেকে প্রকৃত ভারতীয় প্রমাণ করতে তারা হিমশিম খাচ্ছেন এন আর সি আতঙ্কে আসামে ইতিমধ্যে বেশ কিছু লোক আত্মহত্যা পর্যন্ত করেছেন। এছাড়া খসড়া প্রকাশিত হওয়ার পর রাজ্যের শান্তি শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা এখন চরমে। তাই সর্বানন্দ সনোয়ালের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় জনতা পার্টি-অসম গণ পরিষদ-বড়ো পিপলস ফ্রন্ট কোয়ালিশন সরকার স্থানে স্থানে অতিরিক্ত নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করে সতর্কতা মুলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।
নাগরিকপঞ্জিতে অবৈধভাবে ভারতে আসা হিন্দু বাংলাদেশিদের নাম অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি দল। কিন্তু অাসামের জনবিন্যাসে ভারসাম্য নষ্ট হবে বলে এতে ঘোর আপত্তি অসম গণ পরিষদের। তাই সরকারের মধ্যেও দ্বন্দ্ব প্রকট হয়ে উঠেছে। হিন্দুরা ধর্মীয় নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে পালিয়ে এসেছেন এবং এজন্য তাদের পুনর্বাসন দেওয়া উচিত — এই দাবি নিয়ে আসাম থেকে বিজেপির এক প্রতিনিধি দল দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের কাছে গিয়েও দাবি জানিয়ে এসেছেন। তবে তাদের দাবি নিকট ভবিষ্যতে অন্তত কার্যকর হচ্ছে না, সেটা এখনই বলে দেওয়া যায়।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য

Insurance Loans Mortgage

Developed by:

.